• সোমবার   ২৪ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ১০ ১৪২৮

  • || ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
গণঅভ্যুত্থানের চেতনায় সমৃদ্ধ দেশ গঠনের আহ্বান রাষ্ট্রপতির করোনায় ভয়াবহ কিছু হবে না: অর্থমন্ত্রী শহীদ আসাদ গণতন্ত্রপ্রেমী মানুষের মাঝে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন গণতন্ত্রের ইতিহাসে শহীদ আসাদ দিবস একটি অবিস্মরণীয় দিন শহীদ আসাদ দিবস আজ ‘বাংলাদেশকে আর কেউ অবহেলা করতে পারবে না’ সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত এলে চুপ থাকবে না বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সংস্কৃতি গড়তে ডিসিদের প্রতি নির্দেশ ভয়-লোভের ঊর্ধ্বে থাকুন, ডিসিদের প্রধানমন্ত্রী ডিসিদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর ২৪ দফা নির্দেশনা ‘শহিদ ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ভিক্ষা করবে আমি দেখতে চাই না’ ওমিক্রনে মৃত্যু বাড়ছে, সচেতন থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর সেবা নিতে এসে মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হন: প্রধানমন্ত্রী তৃণমূলের মানুষের জীবনমান উন্নত করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ইসির সক্ষমতা বাড়ানোর প্রস্তাব আওয়ামী লীগের সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠনে গুরুত্ব আরোপ রাষ্ট্রপতির ইসি গঠনে আইনের খসড়া অনুমোদন মন্ত্রিসভায় জঙ্গিবাদ নির্মূলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির নৌকায় ভোট দিয়েই রংপুর মঙ্গামুক্ত: প্রধানমন্ত্রী আর যেন কখনও মঙ্গা দেখা না দেয়: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকায় প্রবেশের পথ হবে যানজটমুক্ত

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৮ জানুয়ারি ২০২২  

হাতিরঝিল-আমুলিয়া-ডেমরা মহাসড়ককে ৪ লেনের এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নীত করার করার প্রকল্প শেষ পর্যন্ত এগুতে শুরু করেছে। পরিকল্পিত সড়কটি চট্টগ্রাম ও সিলেট থেকে ঢাকার কেন্দ্রে আসার বিকল্প প্রবেশদ্বার হিসেবে কাজ করবে। পাশাপাশি এটি যানজট কমাতেও সহযোগিতা করবে।

কর্মকর্তারা বলছেন, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বের (পিপিপি) অধীনে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য আগামী রোববার সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর (সওজ) একটি চীনা কনসোর্টিয়ামের সঙ্গে চুক্তি সই করবে।

চু্ক্তি স্বাক্ষরের পর চীনা কনসোর্টিয়াম মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরুর জন্য ৯ মাস সময় পাবে। এ সময়ের মধ্যে প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে ভূমি হস্তান্তর ও কনসোর্টিয়ামকে তহবিল সংগ্রহ করতে হবে।

একবার কাজ শুরু হলে এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে ৪ বছর সময় লাগবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই প্রকল্পে চায়না কমিউনিকশনস কোম্পানি লিমিটেড ও চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ করপোরেশনের কনসোর্টিয়াম ২ হাজার ৯৪ কোটি টাকা এবং বাংলাদেশ সরকার ১ হাজার ২০৯ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে।

হাতিরঝিল থেকে ডেমরা পর্যন্ত এখনকার রুটটি ১৬ দশমিক ৫ কিলোমিটারের। এক্সপ্রেসওয়ে চালু হলে তা ১৩ কিলোমিটারে নেমে আসবে। আর ১ ঘণ্টার পরিবর্তে এর এক মাথা থেকে আরেক মাথায় পৌঁছাতে লাগবে ১০ মিনিট। তবে এটি ব্যবহারের জন্য টোল দিতে হবে।

২০১৬ সালের জানুয়ারিতে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি নীতিগতভাবে প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়ার ৫ বছর পর প্রকল্পের এই অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে। এটি সওজের আওতাধীন দ্বিতীয় পিপিপি প্রকল্প, যা এই পর্যায়ে এসেছে।

সওজ এই মুহূর্তে ৬টি পিপিপি প্রকল্পে কাজ করছে। এর মধ্যে ঢাকা বাইপাস রোডকে ৪ লেন এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নীত করার প্রকল্পটির কেবল মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু হয়েছে। বাকি প্রকল্পগুলো প্রস্তুতিমূলক পর্যায়ে আছে।

এক্সপ্রেসওয়েটি কীভাবে যানজট কমাবে?

ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট, এই দুটি জাতীয় মহাসড়ক ঢাকার সঙ্গে দেশের প্রধান ২টি শহরকে যুক্ত করেছে। তবে ব্যস্ততম এই দুটি মহাসড়কের প্রবেশ ও বহির্গমন পয়েন্ট রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায়।

মহাসড়ক ধরে যানবাহন ঢাকায় ঢোকার পর তা সড়কে ব্যাপক চাপ তৈরি করে। এতে করে প্রায়ই শহরের দক্ষিণ অংশে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়।

তাই ঢাকার যানজট কমাতে ও শহরের কেন্দ্রস্থলে একটি বিকল্প প্রবেশদ্বারের জন্য বিদ্যমান হাতিরঝিল-রামপুরা-বনশ্রী-শেখের জায়গা-আমুলিয়া-ডেমরা রুটটিকে এক্সপ্রেসওয়েতে পরিণত করার পরিকল্পনা করেছে সরকার।

কর্মকর্তারা বলছেন, এক্সপ্রেসওয়েটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিমরাইল এলাকার সাথে সংযুক্ত করা হবে, যেখানে মহাসড়কে যান চলাচল নিরবচ্ছিন্ন রাখতে একটি বহুস্তর বিশিষ্ট ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হবে।

এক্সপ্রেসওয়েটির দুই পাশে থাকবে টোলমুক্ত সড়ক। চট্টগ্রাম রোড, ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার, মেরাদিয়া ও রামপুরা সেতু এলাকায় থাকবে ৪টি ইন্টারচেঞ্জ। এগুলো এক্সপ্রেসওয়েতে ঢোকা ও বের হওয়ার পাশাপাশি টোল আদায়ের কাজে ব্যবহার করা হবে।

প্রকল্প অনুমোদনের পর পিপিপি কর্তৃপক্ষ সম্ভাব্যতা যাচাই ও অন্যান্য কাজের জন্য পরামর্শক নিয়োগ করে।

গত বছরের জানুয়ারিতে, জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি মূলত জমি অধিগ্রহণের জন্য এই এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্প বাস্তবায়নে সহায়তা করার জন্য ১ হাজার ২০৯ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন করে।

সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি গত বছরের নভেম্বরে চীনা কনসোর্টিয়াম নিয়োগের জন্য সওজের প্রস্তাবে সম্মতি দেয়।

সওজ সূত্র জানায়, এক্সপ্রেসওয়ের নকশা প্রায় চূড়ান্ত। এবং কনসোর্টিয়াম এরমধ্যে প্রয়োজনীয় তহবিলের জন্য একটি চীনা ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা শেষ করেছে।

সওজের পিপিপি সেলের সমন্বয়কারী এ কে এম ফজলুল করিম গতকাল এই প্রতিবেদককে বলেন, এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে কনসোর্টিয়াম অর্থায়নের পাশাপাশি তা পরের ২৫ বছরের জন্য পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ করবে।

তিনি আরও বলেন, চুক্তি অনুসারে সরকার টোলের পুরো অর্থ পাবে এবং কনসোর্টিয়াম পাবে একটি নির্দিষ্ট অঙ্ক।

বর্তমানে ঢাকা ও এর আশপাশের এলাকায় আরও দুটি এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণাধীন আছে।

বরগুনার আলো