• শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৭ ১৪২৯

  • || ৩০ জ্বিলকদ ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
পদ্মা সেতুতে নাশকতার চেষ্টা: আটক ১ সঞ্চয় বাড়ানোর পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা হচ্ছে নতুন মুদ্রানীতি সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস হচ্ছে আজ নির্মল রঞ্জন গুহের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ রেল ক্রসিংয়ে ওভারপাস করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কে সেতু-উড়াল সড়ক নির্মাণের নির্দেশ ব্যবসা বৃদ্ধিতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীর সমন্বয়ে নিশ্চিত হবে পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা চাকরির একমাত্র বিকল্প শিক্ষিত বেকারদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা পদ্মা সেতুতে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে স্বপ্নজয়ের পর অপার সম্ভাবনার হাতছানি পদ্মা সেতু: প্রধানমন্ত্রীকে এশিয়ার পাঁচ দেশের অভিনন্দন ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্পের সুষ্ঠু বিকাশে কাজ করছে সরকার পদ্মা সেতুর সফলতায় প্রধানমন্ত্রীকে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন নতুন প্রজন্মকে প্রস্তত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আমরা বিজয়ী জাতি, মাথা উঁচু করে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

শূকরের হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপিত বেনেট বাঁচতে পারলেন না

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০২২  

পৃথিবীতে প্রথমবারের মতো মানুষের মধ্যে শূকরের হৃদপিণ্ড বসানোর মধ্য দিয়ে আলোচনায় এসেছিলো মার্কিন নাগরিক ডেভিড বেনেট। দুই মাস আগে বেনেটের দেহে প্রতিস্থাপিত হয়েছিল জেনেটিক্যালি মডিফাই করা শূকরের হৃদপিণ্ড। কিন্তু দুইমাস না পেরোতেই পৃথিবী ছেড়ে বিদায় নিলেন তিনি।

বেশ কয়েকদিন ধরেই বেনেটের শারীরিক অবস্থার অবনতির দিকে যাচ্ছিল। এরপর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার তার মৃত্যু হয়। 

বিবিসি সুত্রে জানা যায়, এই বছরের জানুয়ারিতে বাল্টিমোরের ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ড মেডিকেল সেন্টারে দীর্ঘ ৭ ঘণ্টার অস্ত্রোপচারে ৫৭ বছর বয়সি ডেভিড বেনেটের দেহে পরীক্ষামূলকভাবে হৃৎপিণ্ডটি প্রতিস্থাপন করেছিলেন চিকিৎসকরা। 

অস্ত্রোপচারের আগেরদিন বেনেট নিজের অবস্থান সম্পর্কে জানিয়ে বলেছিলেন যে, “বিষয়টা এমন হয় মরতে হবে নয়তো প্রতিস্থাপন করতে হবে। আমি জানি, এটা হচ্ছে অন্ধকারে ঢিল ছোড়া, কিন্তু এটাই আমার শেষ ভরসা।”

ডেভিড বেনেটের শরীরে শূকরের এই হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন করেছেন ড. বার্টলে গ্রিফিথ। যদিও  চিকিৎসকরা প্রতিস্থাপন করা হৃৎপিণ্ড নিয়ে বেনেটের আয়ু কেমন হবে তা নিয়ে আগে থেকে কোন ধারণা দিতে সক্ষম হয়নি। তখন তারা জানিয়েছিলেন, তিনি কতটা সময় বাঁচবেন- একদিন, সপ্তাহ, মাস, নাকি বছর তা আমরা জানি না।

তবে এই পরীক্ষা সঙ্কট সমাধানের খুব কাছে নিয়ে গেছে বলে দাবী করেছিলেন চিকিৎসকরা। তারা জানিয়েছিলেন, হৃদযন্ত্রের জটিলতা নিয়ে অনেক মানুষ ভুগছেন। তাদের মধ্যে অসংখ্য মানুষ আছেন, যাদের হৃদযন্ত্র নষ্ট হয়ে গেছে। প্রতিস্থাপন জরুরি। তাদের জন্য দাতাও পাওয়া যায় না। 

বরগুনার আলো