• সোমবার   ০৪ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২০ ১৪২৯

  • || ০৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা, মোনাজাত পদ্মা সেতুতে সন্তানদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সেলফি ‘পদ্মা সেতু ও রপ্তানি আয় জাতির সক্ষমতা প্রমাণ করছে’ টোল দিয়ে পদ্মা সেতুতে উঠলেন প্রধানমন্ত্রী, গাড়ি থামিয়ে উপভোগ করলেন সৌন্দর্য পদ্মা সেতু নির্মাণের সব কৃতিত্ব জনগণের: প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় দেশকে এগিয়ে নিতে পেরেছি পারিবারিক আদালত আইনের খসড়া অনুমোদন ঈদের আগে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলছে না ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ভোলেনি সরকার: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে নাশকতার চেষ্টা: আটক ১ সঞ্চয় বাড়ানোর পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা হচ্ছে নতুন মুদ্রানীতি সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস হচ্ছে আজ নির্মল রঞ্জন গুহের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ রেল ক্রসিংয়ে ওভারপাস করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কে সেতু-উড়াল সড়ক নির্মাণের নির্দেশ ব্যবসা বৃদ্ধিতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীর সমন্বয়ে নিশ্চিত হবে পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা

বিশ্বের সবচেয়ে বড় মিঠা পানির মাছ ধরা পড়লো মেকং নদীতে

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২১ জুন ২০২২  

কম্বোডিয়ার মেকং নদীতে ধরা পড়লো ৩০০ কেজি ওজনের একটি স্টিংরে মাছ। বিশ্বে এটিই সবচেয়ে বড় স্বাদু বা মিঠা পানির মাছ বলে দাবি বিজ্ঞানীদের। এর আগে ২০০৫ সালে থাইল্যান্ডে ধরা পড়ে ২৯৩ কেজি ওজনের একটি বৃহদাকার ক্যাটফিশ। কিন্তু এবারের স্টিংরে সেই অতীত রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। যদিও বিশ্বের সবচেয়ে বড় মিঠা পানির মাছের কোনো সরকারি রেকর্ড বা ডাটাবেস নেই।

মেকং জীববৈচিত্র্যে সমৃদ্ধ একটি নদী। কিন্তু অতিরিক্ত মাছ ধরা, বাঁধ ও দূষণ নদীটির ইকোসিস্টেমকে ভেঙে ফেলেছে। তিব্বত মালভূমি থেকে চীন, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, লাওস, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনামের ওপর দিয়ে প্রবাহিত এই নদী।

ইউএসএইড পরিচালিত ‘ওয়ানডারস অব দ্য মেকং’ সংরক্ষণ প্রকল্পের প্রধান জীববিজ্ঞানী জেব হোগান এই মাছের সন্ধান পাওয়াকে দারুণ খবর বলে মনে করছেন। এই মাছটি খুঁজে পাওয়া এবং নথিভুক্ত করা অসাধারণ ব্যাপার উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘কারণ এটি মেকং-এ ঘটেছে। এমন একটি নদী যা বর্তমানে অনেক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন’।

তিনি আরও বলেন, ‘ছয়টি মহাদেশের নদী, হ্রদে বৃহদাকার মাছ নিয়ে ২০ বছরের গবেষণায় পাওয়া এটিই সবচেয়ে বড় স্বাদুপানির মাছ। আর এই মাছ এখানে পাওয়ার অর্থ হচ্ছে মেকং নদীর এই অংশ এখনও জীববৈচিত্র্যের জন্য উপযোগী।’

গত ১৩ জুন কোহ প্রিয়া দ্বীপের এক স্থানীয় জেলে এই স্টিংরে মাছটি ধরার কথা গবেষকদেরকে জানান। মাছটি ছিল ৩ দশমিক ৯৮ মিটার লম্বা ও ২ দশমিক ২ মিটার চওড়া। স্থানীয় খেমার ভাষায় মাছটিকে বলা হচ্ছে ‘বোরামি’; যার অর্থ পূর্ণ চাঁদ। এই স্ট্রিংরে একটি বিরল এবং বিপন্ন প্রজাতির মাছ। এ নিয়ে গত মে মাস থেকে দুটো স্টিংরে মাছ পরীক্ষা করে দেখার সুযোগ পেলেন গবেষকরা।

বরগুনার আলো