• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২১ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে

বাবা ভারতে, মা পাকিস্তানে, ৪৮ বছর পর দেখা

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২৩  

৪৮ বছর পর দেখা হলো বাবা-ছেলের। এ যেন এক অন্যরকম অনুভূতি। ছেলের বয়স যখন ৭ মাস তখন বাবা রাগ করে পাড়ি জমিয়েছিলেন ভারতে আর ৮ বছর বয়সে মাও পাড়ি জমিয়েছেন পাকিস্তানে। সেই ছেলের বয়স এখন ৪৯ বছর। বাবা কিংবা মায়ের সন্ধানে নানা স্থানে ঘুরে বেরিয়েছেন তিনি। অবশেষে সন্তানের খোঁজে বাবাই এলেন বাংলাদেশে।

নেত্রকোণার আরজদ আলী আর হাজেরার সংসারে যখন ৭ মাসের শিশু কালা মিয়া ১৯৭৪ সালে শ্বশুর বাড়ির সাথে ঝগড়া করে ভারতে পাড়ি জমিয়েছিলেন বাবা আরজদ আলী। আর সেই সন্তানের যখন বয়স ৮ বছর সে সময় মা হাজেরা খাতুনও পাড়ি জমান পাকিস্তানে। সে সময় থেকেই পিতা মাতা হারা কালা মিয়া চলে আসে সিলেটে। তবে ৪৮ বছর পর গত ১০ জানুয়ারি ভারত থেকে ছেলে আর স্ত্রীর খোজে নেত্রকোণায় পৌঁছে আরজদ আলী। সেখান থেকেই বাবাকে নিয়ে সিলেটে আসেন কালা মিয়া। সত্তোরোর্ধ আরজদ আলীর কাছে শোনা গেলো তার নিরুদ্দেশের কাহিনী।

এ ব্যাপারে ছেলে কালা মিয়া বলেন, ৪৮ পর আমার আব্বাকে আমি পেয়েছি। আমার চেয়ে সুখী আর কেউ নাই। আমি যে সম্পদ পেয়েছি। আমার চেয়ে সুখী আর কেউ নাই। আল্লাহ আমার আব্বাকে যেভাবে মিলিয়ে দিয়েছে, ঠিক একইভাবে আমার মা’কেও আমি ফিরে পেতে চাই।

বাবা আরজদ আলী বলেন, মনমালিন্য হয়েছিল বলে স্ত্রী আমাকে শ্বশুরবাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে বলেছিল। আমিও রাগ করে সন্তান ফেলে ভারতের আসামে চলে যাই। অনেক খোঁজখবর করে অবশেষে ছেলেকে পেয়ে বেজায় খুশি বাবা আরজদ।

কালা মিয়ার কাছে জানা যায়, ইতোমধ্যেই বাবা আরজদ আলী ভারতে আর মা হাজেরা বেগম পাকিস্তানে সংসার বেধেছেন, রয়েছে তাদের সন্তানও।

বরগুনার আলো