• সোমবার   ০৪ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২০ ১৪২৯

  • || ০৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা, মোনাজাত পদ্মা সেতুতে সন্তানদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সেলফি ‘পদ্মা সেতু ও রপ্তানি আয় জাতির সক্ষমতা প্রমাণ করছে’ টোল দিয়ে পদ্মা সেতুতে উঠলেন প্রধানমন্ত্রী, গাড়ি থামিয়ে উপভোগ করলেন সৌন্দর্য পদ্মা সেতু নির্মাণের সব কৃতিত্ব জনগণের: প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় দেশকে এগিয়ে নিতে পেরেছি পারিবারিক আদালত আইনের খসড়া অনুমোদন ঈদের আগে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলছে না ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ভোলেনি সরকার: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে নাশকতার চেষ্টা: আটক ১ সঞ্চয় বাড়ানোর পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা হচ্ছে নতুন মুদ্রানীতি সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস হচ্ছে আজ নির্মল রঞ্জন গুহের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ রেল ক্রসিংয়ে ওভারপাস করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কে সেতু-উড়াল সড়ক নির্মাণের নির্দেশ ব্যবসা বৃদ্ধিতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীর সমন্বয়ে নিশ্চিত হবে পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা

যেসব কারণে কান বন্ধ হয়

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৩ জুন ২০২২  

সাধারণত হাঁচি, কাশি, সর্দি লাগলে কানের সঙ্গে নাক এবং গলার যোগাযোগকারী টিউব বন্ধ হয়ে যায়। এতে বাইরের পরিবেশের সঙ্গে ভেতরের যোগাযোগ বিঘ্নিত হয়। এ ছাড়া শ্বাসনালির ওপরের অংশে জীবাণু সংক্রমণ বা প্রদাহও কানের সমস্যার কারণ হতে পারে।

নাকের সঙ্গে গলা ও কানের সংযোগ স্থাপনকারী অডিটরি টিউব মধ্যকর্ণ ও আবহাওয়ার বায়ুচাপের ভারসাম্য রক্ষা করে থাকে। কোনো কারণে এই টিউব বন্ধ হলে বা ঠিকঠাক কাজ না করলে কানের মধ্যে পানি জমে প্রদাহ দেখা দিতে পারে।

কারা আক্রান্ত হন

স্কুলগামী বাচ্চাদের এ সমস্যা বেশি দেখা দেয়। তা ছাড়া যেকোনো বয়সের মানুষজনও আক্রান্ত হতে পারেন। ঘনঘন সর্দি-কাশি-নাক বন্ধ, প্রায়ই অ্যালার্জিজনিত নাকের প্রদাহ, ক্রনিক টনসিলের ইনফেকশন, শিশুদের ক্ষেত্রে নাকের পেছনে এডিনয়েড নামক লসিকা গ্রন্থি বড় হয়ে যাওয়া, নাকের হাড় বাঁকা হওয়া, ভাইরাল ইনফেকশন ছাড়াও নাকের পেছনে ন্যাসোফ্যারিংস নামক স্থানে কোনো টিউমার হলে এ রোগ হতে পারে।

যেসব লক্ষণ দেখা দেয়

কানের মধ্যে পানি জমে প্রদাহ হলে সর্দি-কাশির সঙ্গে হঠাৎ কান বন্ধ হয়, ব্যথা অনুভূত হয়। কানের মধ্যে ফড়ফড় অথবা ভোঁ ভোঁ শব্দ হয়। কানে কম শোনা যায়। এমনকি ইনফেকশন বেশি হলে পর্দা ফুটো হয়ে কান বেড়ে রক্তমিশ্রিত পানি কিংবা পুঁজ আসতে পারে।

এ ধরনের সম্যা দেখা দিলে কালবিলম্ব না করে নাক-কান-গলা চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া অত্যাবশ্যক।

কান বন্ধের চিকিৎসা

কান পরীক্ষার মাধ্যমে সাধারণত অ্যান্টি-হিস্টামিন; বয়স উপযোগী নাকের ড্রপ; প্রয়োজনে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। ব্যথা কমাতে খেতে পারেন প্যারাসিটামলজাতীয় ওষুধ। আপনি যদি চুইংগাম খেতে পছন্দ করেন, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আয়েশ করে চিবোতে থাকুন চুইংগাম, যা চিকিৎসার অংশ হিসেবে কানের বন্ধভাব দূর করার খুব দ্রুত এবং সহজতর পদ্ধতি।

এরপরও যদি ১২ সপ্তাহে সমস্যার সমাধান না হয়, তখন ছোট একটি অপারেশনের মাধ্যমে কানের পর্দা ফুটো করে তরল পদার্থ বের করে দেন নাক-কান-গলা সার্জনরা। যাকে বলে মাইরিংগোটমি। সুতরাং এ ধরনের সমস্যাকে ছোটখাটো ভেবে অবহেলা করা উচিত নয়।

বরগুনার আলো