• বুধবার   ০৫ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৯ ১৪২৯

  • || ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
দেশের বিভিন্ন জেলায় বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঢাকেশ্বরী মন্দিরে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী কন্যাশিশুর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আমাদের কর্তব্য: রাষ্ট্রপতি সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কন্যাশিশুদের নিরাপত্তা অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরার পথে লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীর যাত্রা বিরতি কৃষিতে বাংলাদেশের সাফল্যের সূচনা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব: রাষ্ট্রপতি সোনার বাংলা গড়তে কৃষিকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী ‘শিশুদের শারীরিক-মানসিক বিকাশে সুস্থ বিনোদনের বিকল্প নেই’ ‘মুজিববর্ষে ১ লাখ ৮৫ হাজার ১২৯টি ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে’ শিশুদের বুকে বড় হওয়ার স্বপ্ন জাগিয়ে দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী আগামী প্রজন্মের জন্য পরিকল্পিত নগরায়ণের বিকল্প নেই : রাষ্ট্রপতি ‘সেনাবাহিনীর হাজার হাজার অফিসার ও সৈনিক হত্যা করে জিয়া’ যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী জিনপিংকে শুভেচ্ছা জানিয়ে হামিদ-হাসিনার চিঠি প্রতিটি ক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি অপরিহার্য: রাষ্ট্রপতি দেশে উৎপাদনশীলতা বাড়াতে একযোগে কাজ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফেরানোর চেষ্টা চলছে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে দুর্গাপূজা এখন সার্বজনীন উৎসব: প্রধানমন্ত্রী

হঠাৎ হতে পারে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট, জেনে রাখুন এর লক্ষণ

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৭ আগস্ট ২০২২  

সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট (এসসিএ) হতে পারে যখন তখনই। এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে হৃদপিণ্ড কাজ করা বন্ধ করে দেয়। এতে রক্তে অক্সিজেনের পরিমাণও কমে যায়, ফলে কয়েক মিনিটের মধ্যে মস্তিষ্ক কাজ করা বন্ধ করে দেয় ও রোগীর মৃত্যু ঘটতে পারে।

যদি সময়মতো এমন রোগীকে সঠিক চিকিৎসার আওতায় আনা হয় তাহলে হয়তো তিনি বেঁচে যেতে পারেন। না হলে সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট মুহূর্তেই কার্ডিয়াক ডেথ হতে পারে।

বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর অন্যতম প্রধান এক কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে এই কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট। ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিকের মতে, হৃদরোগের কারণে প্রায় ৫০ শতাংশ মৃত্যুর জন্য সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট দায়ী।

হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট কী?

হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হলে হৃৎপিণ্ডের কার্যকারিতা, শ্বাস-প্রশ্বাস ও চেতনা আকস্মিকভাবে কমে যায়। এটি হৃৎপিণ্ডে বৈদ্যুতিক গোলযোগের কারণে ঘটে। শরীরে রক্ত প্রবাহ বন্ধ হওয়ায় হৃদযন্ত্র পাম্পিং করতে পারে না।

এক্ষেত্রে যখন হৃদপিণ্ড কাজ করা বন্ধ করে দেয় তখনই রোগী ঢলে পড়ে মৃত্যুর কোলে। এ সময় রোগী অচেতন হয়ে যান, আর তখনই যদি তার চিকিৎসা শুরু করা যায় তাহলে তিনি বেঁচে যেতে পারেন।

তাই নিজে বাঁচতে অন্যকে বাঁচাতে সবারই জেনে রাখা উচিত হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট কেন হয়, এর উপসর্গ ও চিকিৎসাই বা কী। এ বিষয়ে ভারতের ব্যাঙ্গালুরুর ফোর্টিস হাসপাতালের কনসালটেন্ট ইলেক্ট্রোফিজিওলজিস্ট ড. জয়প্রকাশ শেনথার জানিয়েছেন বিস্তারিত-

হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের কারণ কী?

এসসিএ-এর সবচেয়ে সাধারণ কারণ হলো অ্যারিথমিয়া যা হৃৎপিণ্ডের বৈদ্যুতিক সিস্টেমে সমস্যার কারণে অনিয়মিত বা অস্বাভাবিক হৃদস্পন্দন। হৃৎপিণ্ডের বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা হৃদস্পন্দনের হার ও ছন্দ নিয়ন্ত্রণ করে।

হৃৎপিণ্ডের স্বাভাবিক ছন্দে কোনো বাধা অ্যারিথমিয়া হতে পারে। এছাড়া করোনারি হার্ট ডিজিজ, জন্মগত হৃদরোগ, হার্ট অ্যাটাক, ভালভুলার হার্ট ডিজিজ বা হার্ট বড় হয়ে যাওয়ার মতো বিভিন্ন কারণেও হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের ঝুঁকি বাড়ে।

হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের লক্ষণ কী?

এসসিএ-র উপসর্গগুলো আকস্মিক ও গুরুতরভাবে ঘটে তাও আবার হঠাৎ করেই। এর মধ্যে আছে- হৃদস্পন্দন কমে যাওয়া, বুকে ব্যথা বা অস্বস্তি, অচেতন হয়ে পড়া, মাথা ঘোরা বা হালকা মাথাব্যথা, দুর্বলতা, শ্বাসকষ্ট, বুকে ধড়ফড় করা, ঘ্রাণ না পাওয়া ইত্যাদি। বেশিরভাগ রোগীই এসসিএ’তে আক্রান্ত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে এই লক্ষণগুলো অনুভব করেন।

হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের চিকিৎসা কী?

রোগীকে সঠিক সময়ে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা প্রথমেই কার্ডিওপালমোনারি রিসাসিটেশন (সিপিআর), ডিফিব্রিলেটর ব্যবহার করে (যে ডিভাইসগুলি হৃৎপিণ্ডে বৈদ্যুতিক স্পন্দন বা শক পাঠিয়ে স্বাভাবিক হৃদস্পন্দন পুনরুদ্ধার করে) রোগীর হৃদস্পন্দন ফেরানোর চেষ্টা করেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, একটি স্বাস্থ্যকর ও সুষম জীবনধারা বজায় রাখার মাধ্যমে এসসিএ’র মতো হৃদরোগের সমস্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব।

বরগুনার আলো