• শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৪ মুহররম ১৪৪৬

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী চীন সফর সংক্ষিপ্ত করে আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী ঢাকা-বেইজিং ৭ ঘোষণাপত্র, ২১ চুক্তি সই চীনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে চীনের প্রতি সহযোগিতার আহ্বান বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখনই উপযুক্ত সময় তিয়েনআনমেন স্কয়ারে চীনা বিপ্লবীদের প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা চীন-বাংলাদেশ হাত মেলালে বিশাল কিছু অর্জন সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখনই সময়: চীনা ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী বেইজিং পৌঁছেছেন, শি জিংপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক আজ দ্বিপক্ষীয় সফরে চীনের পথে প্রধানমন্ত্রী সশস্ত্র বাহিনীকে বিশ্বমানের করে গড়ে তোলা হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী চীন সফরে যাচ্ছেন আজ সর্বজনীন পেনশনে যুক্ত হতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান শেখ হাসিনার পড়াশোনা নষ্ট করে কোটাবিরোধী আন্দোলনের কোনো যৌক্তিকতা নেই পিজিআরকে ‘চেইন অব কমান্ডে’র প্রতি আস্থাশীল থেকে অর্পিত দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালনের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিতে কৃষি ও কৃষকের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে সরকারের কৃষিবান্ধব নীতির ফলে টেকসই কৃষি প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত হয়েছে

নারীর ওভারিয়ান ক্যানসারের লক্ষণ কী কী?

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

নারীদের মধ্যে যে কয়েক ধরনের ক্যানসার বেশি দেখা দেয়, তার মধ্যে অন্যতম হলো ওভারিয়ান ক্যানসার। একে সাইলেন্ট কিলারও বলা হয়। ওভারিয়ান বা ডিম্বাশয়ের ক্যানসার এখন অস্বাভাবিক বা বিরল কোনো রোগ নয়। প্রাথমিকভাবে শনাক্ত হলে এই ক্যানসার দ্রুত প্রতিরোধ করা সম্ভব।

ওভারি বা ডিম্বাশয় কী?

ওভারি বা ডিম্বাশয় সন্তানধারণের জন্য প্রয়োজনীয় ডিম্ব তৈরি করে। পাশাপাশি শরীরের জন্য জরুরি ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্টেরন হরমোন নিয়ন্ত্রণ করে। নারী শরীরে জরায়ু অর্থাৎ ইউটেরাসের দু’পাশে দু’টি ওভারি থাকে।

ওভারির যে কোনো অসুস্থতায় আপনার জীবন ঝুঁকিতে পরতে পারে। বিশেষ করে ওভারিয়ান ক্যানসার মৃত্যুরও কারণ হতে পারে। চার ধাপে ডিম্বাশয় ক্যানসার শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।

প্রথম ধাপে একটি বা উভয় ওভারিতে ক্যানসার ছড়ায়। দ্বিতীয় ধাপে ওভারি থেকে তলপেটের আশপাশে ছড়িয়ে পড়ে ক্যানসার। তৃতীয় ধাপে পুরো পেটে ছড়িয়ে পড়ে। সর্বশেষ ধাপে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে ওভারিয়ান ক্যানসার।

ওভারিয়ান ক্যানসারের লক্ষণ

এই ক্যানসার প্রথমদিকে শনাক্ত করা যায় না। অধিকাংশ রোগীই টের পান না তিনি এই ক্যানসারে ভুগছেন। যতক্ষণ না পর্যন্ত পেলভিক জোনে ও পেটে না ছড়ায়, ততক্ষণ পর্যন্ত এটি বোঝা যায় না।

ডিম্বাশয় ক্যানসারের প্রাথমিক উপসর্গ খুব সূক্ষ্ম হতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রাথমিক পর্যায় ব্যথাহীন হয়। এ কারণে এই রোগ শনাক্তে দেরি হয়ে যায়।

ওভারিয়ান ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণ কী কী?

১. ডিম্বাশয়ে ক্যানসারে হলে খাদ্য হজম প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ফলে ক্ষুধা কমে যায় ও পেট ভরা ভরা লাগে সব সময়। হঠাৎ করে ক্ষুধা কমে যাওয়া এ রোগের প্রধান লক্ষণ।

২. কোমরের নীচের দিকে দীর্ঘদিন ধরে চিনচিন করা ব্যথা হলে তা ডিম্বাশয় ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে।

৩. ওভারিয়ান ক্যানসারের অন্যতম লক্ষণ হল অনিয়মিত মাসিক। আবার যোনিপথে হঠাৎ রক্তপাত হওয়াও ভালো লক্ষণ নয়। তবে অনেক সময় ডিম্বাশয়ের সিস্টের জন্যও অনিয়মিত পিরিয়ড হতে পারে।

৪. কোষ্ঠকাঠিন্য বা ডায়রিয়ার সমস্যা প্রায়ই দেখা দেয় এক্ষেত্রে। ডিম্বাশয়ের টিউমার ফুলে উঠে পেট, অন্ত্র, ব্ল্যাডার বা মূত্রথলিতে চাপ দিতে থাকলে এই সমস্যাগুলো হতে পারে। দীর্ঘদিন এমন সমস্যায় ভুগলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

৫. এছাড়া হঠাৎ ওজন কমতে শুরু করা, ঘন ঘন প্রস্রাব, পেলভিস এরিয়ায় ঘন ঘন ব্যথা, যোনি পথের আশপাশের চামড়ার রং পরিবর্তন বা ফুসকুড়ি দেখা দিতে পারে।

৬. ওভারিয়ান ক্যানসারের আরও কিছু লক্ষণ হলো- সাদা স্রাব নিঃসরণ, বেশি সময় ধরে তীব্র পেট ব্যথা ইত্যাদি।

ওভারিয়ান ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে কেন?

অনিয়মিত মাসিক, গর্ভনিরোধক ওষুধ সেবন, একাধিক গর্ভধারণ ও অল্প বয়সে গর্ভাবস্থা হলে এ ক্যনসার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। আবার কিছু কিছু মেডিসিন ব্যবহারেও ডিম্বাণুতে টিউমার হতে পারে।

যাদের প্রজনন অক্ষমতার জন্য হরমোনাল চিকিৎসা নিতে হয় তাদের ডিম্বাশয় ক্যানসারের জন্য ঝুঁকি থাকে। মেনপোজের আগে শরীরের অতিরিক্ত ওজন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে।

পরিবারের কারও যদি ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা থাকে তাহলে অন্যদেরও আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

কীভাবে শনাক্ত করা হয়?

প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পড়লে ও চিকিৎসা করা হলে পরবর্তী ৫ বছরের মধ্যেই রোগী ৯০ শতাংশ সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন।

রক্ত পরীক্ষা, আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানিং, ল্যাপারোস্কপি, সিরাম টিউমার মার্কার টেস্ট ও ইমিউনোলজিক্যাল টেস্টের মাধ্যমে এই ক্যানসার শনাক্ত করা হয়।

ওভারিয়ান ক্যানসারের চিকিৎসা ও প্রতিকার

প্রাথমিক কিছু লক্ষণ দেখা দিলে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ওভারিয়ান ক্যানসার ধরা পড়লে কেমোথেরাপি বা রেডিয়েশন কতটুকু কার্যকর সেটা অনকোলজিস্ট বলতে পারবেন।

যাদের শরীরে ওভারিয়ান ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি বেশি, তারা ঝুঁকি নিয়ে ওভারি ও ফ্যালোপিয়ান টিউব অপসারণ করতে পারেন। ওভারিয়ান ক্যান্সার রোধে এটি একটি কার্যকরী পদ্ধতি।

গবেষণায় দেখা যায়, যেসব নারী সন্তানকে বুকের দুধ দেন তাদের মাঝে ওভারিয়ান ক্যানসারে হওয়ার প্রবণতা কম। ওভারিয়ান ক্যানসারে আক্রান্ত হলে মানসিকভাবে ভেঙ্গে না পড়ে সঠিক চিকিৎসা নেওয়াটাই গুরুত্বপূর্ণ।

বরগুনার আলো