• রোববার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ১১ ১৪২৮

  • || ১৭ সফর ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জাতিসংঘে শেখ হাসিনার বক্তব্য সারাবিশ্বে প্রশংসিত: ওবায়দুল কাদের নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণ স্মরণে ই-পোস্টার জরুরি ভিত্তিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন জোরদারের দাবি প্রধানমন্ত্রীর করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান কুয়েত ও সুইডেনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক দেশের বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিশীল খাতে মার্কিন বিনিয়োগের আহ্বান এসডিজি’র উন্নতিতে জাতিসংঘে পুরস্কৃত বাংলাদেশ নিউইয়র্কে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী টিকা নেওয়ার পর খোলার সিদ্ধান্ত নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয় নিতে পারবে বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে’ ঘোষণা ফিনল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী `লাশের নামে একটা বাক্সো সাজিয়ে-গুজিয়ে আনা হয়েছিল` টকশোতে কে কী বলল ওসব নিয়ে দেশ পরিচালনা করি না: প্রধানমন্ত্রী উপহারের ঘরে দুর্নীতি তদন্তে দুদককে নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী জিয়াকে আসামি করতে চেয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করল? ওজোন স্তর রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতকেও এগিয়ে আসতে হবে ওজোন স্তর রক্ষায় সিএফসি গ্যাসনির্ভর যন্ত্রের ব্যবহার কমাতে হবে

আন্দোলনের বিষয় বিভিন্ন দলের সঙ্গে বৈঠক করেও সাড়া পাচ্ছে না বিএনপি

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৭ জুলাই ২০২১  

ঈদের পর নতুন করে আন্দোলন শুরু করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছিল বিএনপি। সে লক্ষ্যে, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যোগাযোগও শুরু করেছিল দলটি। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কয়েকটি দল ছাড়াও বেশকিছু রাজনৈতিক দলের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করেছিলেন বিএনপির কয়েকজন নেতা। কিন্তু কারো কাছ থেকেই ইতিবাচক সাড়া পায়নি বিএনপি। 

জানা গেছে, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তিনটি কারণে বিএনপির সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছে। প্রথমত, অধিকাংশ রাজনৈতিক দলই বলেছে এখন করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ। এরকম একটি পরিস্থিতিতে আন্দোলন করা সঠিক নয়। সাধারণ মানুষ এটিকে সহজভাবে নেবে না। রাজনৈতিক দলগুলো বলছে এখন দেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, দরিদ্র মানুষকে সহায়তা করা এবং করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করাই প্রধান কাজ। রাজনৈতিক আন্দোলন নয়।

দ্বিতীয়ত, যে কারণে বিএনপির সঙ্গে জোটবদ্ধ আন্দোলনে আগ্রহী নয় রাজনৈতিক দলগুলো তা হলো, বিএনপির নেতৃত্বের সংকট। একাধিক রাজনৈতিক দল বলেছে, বিএনপি বড় দল। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করলে তার নেতৃত্ব বিএনপিকেই নিতে হবে। কিন্তু বিএনপিতে এমন কোন জাতীয় নেতা নেই, যিনি বিরোধীদলকে এবং জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারেন। রাজনৈতিক দলগুলো মনে করছে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া থেকেও নেই। আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়ার মতো অবস্থা তার নেই। অন্যদিকে তারেক জিয়ার ব্যাপারেও আস্থা নেই রাজনৈতিক দলগুলোর। ২০ দলের একটি শরীক দলের অন্যতম নেতা বলেছেন ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম ভালো মানুষ। কিন্তু জাতীয় নেতা হিসেবে তার গ্রহণযোগ্যতা নেই। আর লন্ডন থেকে বাণী দিয়ে আন্দোলন হয় না।’

তৃতীয় কারণ হিসেবে রাজনৈতিক দলগুলো বলছে, জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক। নাগরিক ঐক্য, জেএসডির মতো রাজনৈতিক দলগুলোর জামায়াতকে নিয়ে অস্বস্তি রয়েছে। তারা বিএনপি নেতৃবৃন্দকে সুস্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছে, আন্দোলন তারা করতেই চায়। কিন্তু সবার আগে জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির অবস্থান খোলাসা করতে হবে। ২০১৮ সাল থেকেই এই দলগুলো বিএনপিকে জামাতের সঙ্গ ছাড়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিতে বলছে। কিন্তু এ ব্যাপারে বিএনপি আনুষ্ঠানিক ভাবে কিছুই বলেননি। ফলে, জামায়াতকে নিয়ে আপত্তির কারণে বিএনপির ডাকে সাড়া দিচ্ছে না অনেক রাজনৈতিক দল। ফলে ঈদের পর বড় আন্দোলনের বিএনপির পরিকল্পনা অঙ্কুরেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

বরগুনার আলো