• শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
রূপপুর মেটাবে বিদ্যুতের চাহিদা, দেবে লাভও দ্রব্যমূল্য নিয়ে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ৪ দফা প্রস্তাব পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশবান্ধব: প্রধানমন্ত্রী খালেদাকে পদ্মায় ফেলতে আর ইউনূসকে চুবিয়ে তুলতে বললেন শেখ হাসিনা কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রিফুয়েলিং পয়েন্ট কক্সবাজারে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে কউক’র নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে- প্রধানমন্ত্রী ওপেনিংয়ে চতুর্থ সেরা জুটি গড়ে ফিরলেন জয়, তামিমের সেঞ্চুরি নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী টাকা অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী ‌ঢাকায় বসে সমালোচনা না করে গ্রামে ঘুরে আসুন

সিনিয়রদের অতিরিক্ত লোভের কারণেই বিএনপির এই অধঃপতন

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারি ২০২২  

বিএনপির রাজনৈতিক অধঃপতনের জন্য তৃণমূল নয় বরং কেন্দ্রের দায়িত্বশীল নেতাদের ব্যর্থতাই দায়ী বলে মনে করেন সদ্য বিএনপি থেকে বহিষ্কার হওয়া নেতাকর্মীরা। তারা মনে করেন, কেন্দ্রীয় নেতাদের খাম-খেয়ালিপনা, পদ-বাণিজ্য, দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহারের কারণে তৃণমূলে অসন্তোষ বাড়ছে। এরপরও তৃণমূল নেতরা কেবল খালেদা জিয়ার মুখের দিকে তাকিয়ে রাজনীতি করছেন। বিএনপির সিনিয়র নেতারা লোভ-লালসা ও প্রভাব বিস্তারের রাজনীতি থেকে বের হতে না পারলে আগামীতে বিএনপি করার কেউ থাকবে না বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা।

এ বিষয়ে বিএনপির সিনিয়র ও দায়িত্বশীল এক নেতা জানান, বিএনপি মূলত তৃণমূলের শক্তির উপর নির্ভর করে রাজনীতি করে। আমি যতদূর জানি, তৃণমূল বিএনপির নেতা-কর্মীরা লোভ-লালসা ও পদ-বাণিজ্যের রাজনীতি করেন না। তারা বেগম জিয়ার আদর্শের রাজনীতি করেন। কিন্তু বিএনপির স্থায়ী কমিটি ও নীতি-নির্ধারক কমিটির বেশিরভাগ সদস্যরা তার উল্টো রাজনীতিতে ব্যস্ত। তারা পদ-বাণিজ্য, মনোনয়ন বাণিজ্যসহ নানা অনিয়মে জড়িত। তৃণমূলে যেসব কর্মী রাজনীতি করেন, তারা কিছু চায় না। তাদের লোভ-লালসা নেই। রিজভী আহমেদের মতো কিছু নেতা বিএনপির ক্ষতি করছেন।

তিনি আরো বলেন, বিএনপির সাধারণ কর্মীরা সবাই ভালো মানুষ। সেই কর্মীরা শুধু একটু ভালোবাসা চায়, একটু সম্মান চায়। এর বেশি কিছু তৃণমূলের কর্মীরা চায় না। কিন্তু কেন্দ্রীয় বিএনপির নেতারা অর্থ চান, তোষামোদি চান। তোষামোদি ও চাটুকারিতা না করতে পারলে বিএনপিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়া যায় না। এটি চরম সত্য। যার কারণে বিএনপি রাজনীতিতে ক্ষয়িষ্ণু শক্তিতে পরিণত হচ্ছে। তারেক রহমান যদি সত্যিকার অর্থে বিএনপিকে রক্ষা করতে চান তবে চাটুকার, লোভী ও বিভেদ সৃষ্টিকারী নেতাদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিতে হবে। তা না হলে বিএনপি আগামীতে কর্মীশূন্য হয়ে পড়বে।

বরগুনার আলো