• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে

যে ভয়ে পরকালে আল্লাহর বিচারালয়ে মুক্তি পাবে মানুষ

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০২৩  

বিচার দিবসে একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিপতি হবেন আল্লাহ। সেদিন প্রতেক্য বনি আদমকেই আল্লাহ তাআলার দরবারে দুনিয়ার প্রতিটি কর্মের হিসাব দিতে হবে। সেদিন আল্লাহর বিচারালয়ে মানুষের মুক্তির একমাত্র পথ হচ্ছে তাঁর বিধি-বিধান মেনে চলার পাশাপাশি তাঁকে বেশি বেশি ভয় করা।

আল্লাহ তাআলা তাঁর প্রতি ভয় পোষণকারীকে ভালোবাসেন। যে ব্যক্তি আল্লাহ তাআলাকে ভয় করে ওই ব্যক্তির দ্বারা কোনো অন্যায় বা গোনাহের কাজ করা সম্ভব হয় না। আল্লাহর ভয় মানুষকে দুনিয়ার যাবতীয় অন্যায় ও পাপ কাজ থেকে বিরত রাখে। এ জন্য আল্লাহ ও তাঁর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কুরআন-হাদিসের অসংখ্য জায়গায় আল্লাহকে ভয় করার কথা বার বার বলেছেন।

আল্লাহকে কেন ভয় করতে হবে? এ ভয়ের ধরন ও তাৎপর্য কী? তাফসিরকারগণ কিয়ামতের দিন আল্লাহকে ভয় করার ব্যাখ্যা এভাবে করেছেন যে, ভয় হবে দু’ধরণের-

প্রথম ভয়
দুনিয়ার ওই সব ব্যক্তির ভয় যারা আল্লাহ তাআলার বিধি-বিধান যথাযথ পালন না করতে পারে নাই। দুনিয়ার জীবনে তাদের কৃত অপরাধের কারণে তাদের অন্তরে জাগ্রত আল্লাহ তাআলার কঠিন শাস্তির ভয়।

দ্বিতীয় ভয়
দুনিয়াতে আল্লাহ তাআলা ইবাদত-বন্দেগি ও তাঁর বিধি-বিধান পালন করা সত্ত্বেও আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব ও মহিমা, তাঁর অনন্ত অসীম ক্ষমতা ও কুদরাতের কারণে মানুষের মনে স্বাভাবিকভাবে যে ভয়ের উদ্রেক হয়; সেই ভয়।

যারা আল্লাহর পথে জীবন পরিচালন করে এবং কুরআন হাদিসের মতের ওপর অটল ও অবিচল থাকবে; কিয়ামতের দিন তাদের কোনো ভয় থাকবে না ঠিকই কিন্তু আল্লাহ তাআলার অসাধারণ প্রভাব-দাপট ও একচ্ছত্র ক্ষমতার ভয় সব সময় তাদের অন্তরে থাকবে। আর আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের অন্তরে এ ভয়ই বেশি হয়ে থাকে।

আল্লামা আলুসী রহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেছেন, ‘আল্লাহ তাআলার শ্রেষ্ঠত্ব ও মহিমার ভয়; বান্দার হৃদয়ে তা হবে পরিপূর্ণ ভাবে। আর যারা তার সর্বাধিক আপন, তাদের ভয় অত্যন্ত বেশি।

হাকিমুল উম্মাত আশরাফ আলী থানবী রহমাতুল্লাহি আলাইহি পরকালে আল্লাহর ভয়ের দৃষ্টান্ত এভাবে তুলে ধরেছেন, ‘কোনো অভিযুক্ত ব্যক্তিকে যদি তার আইনজীবী এ মর্মে নিশ্চিত করেন যে, এ মামলায় কোনো শাস্তি এবং ভয়ের কারণ নেই; তারপরও অভিযুক্ত ব্যক্তির মনে স্বভাবগতভাবে অবশ্যই ভয় থাকবে যে, কি জানি কি হয়।’

উল্লেখিত আলোচনা থেকে বুঝা যায় যে, আল্লাহ তাআলা তাঁর বান্দাদেরকে পরকালে ক্ষমা করবেন শুধুমাত্র তাঁকে ভয় করার কারণে।

যারা আল্লাহ তাআলাকে বেশি বেশি ভয় করে তাদের দ্বারা দুনিয়াতে কোনো অন্যায়-অপরাধ করা সম্ভব নয়। তাই আল্লাহর কাছে তাঁকে ভয়কারীর মর্যাদা অনেক বেশি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে পরকালের চিরস্থায়ী জীবনে শান্তি ও কল্যাণ লাভে দুনিয়াতে আল্লাহ তাআলাকে ভয় করার তাওফিক দান করুন। আল্লাহর বিধানকে যথাযথভাবে পালন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

বরগুনার আলো