• রোববার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ১১ ১৪২৮

  • || ১৭ সফর ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জাতিসংঘে শেখ হাসিনার বক্তব্য সারাবিশ্বে প্রশংসিত: ওবায়দুল কাদের নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণ স্মরণে ই-পোস্টার জরুরি ভিত্তিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন জোরদারের দাবি প্রধানমন্ত্রীর করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান কুয়েত ও সুইডেনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক দেশের বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিশীল খাতে মার্কিন বিনিয়োগের আহ্বান এসডিজি’র উন্নতিতে জাতিসংঘে পুরস্কৃত বাংলাদেশ নিউইয়র্কে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী টিকা নেওয়ার পর খোলার সিদ্ধান্ত নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয় নিতে পারবে বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে’ ঘোষণা ফিনল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী `লাশের নামে একটা বাক্সো সাজিয়ে-গুজিয়ে আনা হয়েছিল` টকশোতে কে কী বলল ওসব নিয়ে দেশ পরিচালনা করি না: প্রধানমন্ত্রী উপহারের ঘরে দুর্নীতি তদন্তে দুদককে নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী জিয়াকে আসামি করতে চেয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করল? ওজোন স্তর রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতকেও এগিয়ে আসতে হবে ওজোন স্তর রক্ষায় সিএফসি গ্যাসনির্ভর যন্ত্রের ব্যবহার কমাতে হবে

পৃথিবীর কেন্দ্রে ‘গোলযোগ’, আশঙ্কায় বিজ্ঞানীরা

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৬ জুলাই ২০২১  

পৃথিবীর ভূপৃষ্ঠের নিচে গলিত ধাতু এবং ম্যাগমার সমুদ্রে ঘেরা আয়রন বলের আকারে জমাট হয়ে রয়েছে। যাকে পৃথিবীর কেন্দ্র বলা হয়। এটা এতটাই গরম যে প্রতি ঘণ্টায় এক ট্রিলিয়ন কাপ কফি বানাতে পারে অর্থাৎ পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের জন্য ১০০ কাপ কফি। হঠাৎ যদি পৃথিবীর কেন্দ্র বা কোর অস্বাভাবিক বা ঠাণ্ডা হয়ে যায় তাহলে কী হবে? সত্যিই বিষয়টা উদ্বে‌গের।
সম্প্রতি বিজ্ঞান বিষয়ক সাময়িকী নেচার জিওসায়েন্সে প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে বিজ্ঞানীরা দেখিয়েছেন, পৃথিবীর কেন্দ্রের তরল অংশ ঠাণ্ডা হয়ে কঠিন শিলায় পরিণত হচ্ছে।

ভূ-তাত্ত্বিকদের গবেষণায় উঠে এল এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য। তারা জানিয়েছেন, পূর্বদিকের ঘনত্ব ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে, উল্টোদিকে পশ্চিম অংশের ঘনত্ব সেই তুলনায় প্রায় স্থির রয়েছে।  আপাতত এর ফলে বড় ধরণের কোনো বিপদের আশঙ্কা না থাকলেও মহাশূন্যে সব গ্রহই নির্দিষ্ট ভারসাম্যের কারণে টিকে থাকে। তাই আগামীতে এই পরিবর্তনের কেমন প্রভাব পড়তে পারে, তা নিয়ে বেশ চিন্তিত বিজ্ঞানীরা।

পৃথিবীর কেন্দ্র মূলত লোহা এবং নিকেল দিয়ে গঠিত। প্রবল তাপে গলিত অবস্থায় থাকা এই তরল অংশও ক্রমশ কঠিন হয়ে আসছে। গত ১০০ বছরের বিভিন্ন ভূমিকম্প থেকে পাওয়া সিসমিক তরঙ্গের তথ্য সে-কথা প্রমাণ করেছে। কিন্তু তার থেকেও চিন্তার বিষয়, এই ঘনীভবন সর্বত্র একই গতিতে ঘটছে না। পূর্ব গোলার্ধে, অর্থাৎ ইন্দোনেশিয়ার নীচে যত দ্রুত ঘনীভবন ঘটছে, আমেরিকার নিচে তার গতি অনেকটাই কম।

যদি পৃথিবীর কেন্দ্র একেবারে ঠান্ডা হয়ে যায় তাহলে এটি কোনো বিদ্যুৎ তৈরি করবে না এবং ম্যাগনেটিক ফিল্ড নষ্ট হয়ে যাবে। ম্যাগনেটিক ফিল্ড না থাকলে বায়ুমণ্ডলও থাকবে না। ফলে পৃথিবীর অবস্থা মঙ্গল গ্রহের মতোই হবে। কোনো অক্সিজেন থাকবে না, পানি  বা পাথর কিছুই গরম হবে না,  কোনো রকম গ্যাস বের হবে না, ধীরে ধীরে পৃথিবী শীতল হতে থাকবে। আগ্নেয়গিরি থেকে লাভা নির্গমন হবে না। টেক্টনিক প্লেট স্থির হয়ে যাবে। ভূমিকম্প হবে না। পৃথিবীতে প্রাণের কোনো অস্তিত্বই থাকবে না। আমাদেরকে পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে।

এটা তো সত্য যে আজ না হোক সুদূর ভবিষ্যতে পৃথিবী ঠাণ্ডা হয়ে যাবে, তখন আমাদেরকে এই দুনিয়ায় ছেড়ে অন্য কোথাও পাড়ি দিতে হবে। তাছাড়া সকলেরই মৃত্যু ঘটবে।

বরগুনার আলো