• শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৭ ১৪২৯

  • || ৩০ জ্বিলকদ ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
পদ্মা সেতুতে নাশকতার চেষ্টা: আটক ১ সঞ্চয় বাড়ানোর পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা হচ্ছে নতুন মুদ্রানীতি সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস হচ্ছে আজ নির্মল রঞ্জন গুহের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ রেল ক্রসিংয়ে ওভারপাস করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কে সেতু-উড়াল সড়ক নির্মাণের নির্দেশ ব্যবসা বৃদ্ধিতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীর সমন্বয়ে নিশ্চিত হবে পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা চাকরির একমাত্র বিকল্প শিক্ষিত বেকারদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা পদ্মা সেতুতে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে স্বপ্নজয়ের পর অপার সম্ভাবনার হাতছানি পদ্মা সেতু: প্রধানমন্ত্রীকে এশিয়ার পাঁচ দেশের অভিনন্দন ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্পের সুষ্ঠু বিকাশে কাজ করছে সরকার পদ্মা সেতুর সফলতায় প্রধানমন্ত্রীকে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন নতুন প্রজন্মকে প্রস্তত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আমরা বিজয়ী জাতি, মাথা উঁচু করে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

মঙ্গলে এবার প্রাণের অস্তিত্বের খোঁজে ‘পারসিভারেন্স’

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৮ মে ২০২২  

প্রায় এক বছর ধরে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের পর এবার মঙ্গলগ্রহে প্রাণের সন্ধান নিয়ে গবেষণা শুরু করতে যাচ্ছে নাসার পাঠানো পারসিভারেন্স রোভার। নাসার বিজ্ঞানীরা বলছেন, মঙ্গলে প্রাণের সন্ধান নিয়ে গবেষণার জন্য শিলা সংগ্রহ করে সেগুলো পৃথিবীতে নিয়ে আসা হবে। খবর বিবিসি।

মঙ্গলগ্রহে কি কখনো প্রাণের অস্তিত্ব ছিল? হন্যে হয়ে এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন বিজ্ঞানীরা। আর তাই একের পর এক চলছে মার্স মিশন। লাল গ্রহে নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছে বিভিন্ন দেশের পাঠানো রোবট।

মঙ্গলে প্রাণের সন্ধান ও জীবনধারণ নিয়ে গবেষণার জন্য পাঠানো নাসার পারসিভারেন্স রোভার তার মিশনের একটি গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে পৌঁছেছে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, মঙ্গলগ্রহের ‘অ্যানসিয়েন্ট ডেলটা’ এলাকায় আদিমকালে প্রাণের অস্তিত্ব থাকতে পারে। আর মঙ্গলবার (১৭ মে) সেখানে ওঠে ছয় চাকার পারসিভারেন্স।

ইতোমধ্যে নাসার পাঠানো এই রোবটটি মঙ্গলগ্রহে অক্সিজেন উৎপাদন করেছে। হাইটেক এই রোবট মঙ্গলের আকাশে ড্রোন, হেলিকপ্টারও উড়িয়েছে বলে জানা গেছে।

অতীতে মঙ্গলে প্রাণের কোনো অস্তিত্ব ছিল কি না, তা যাচাইয়ের সবচেয়ে ভালো উপায় হলো শিলা পরীক্ষা করে দেখা। পারসিভারেন্স শুধু শিলা পরীক্ষা করেই দেখবে না, শিলা সংগ্রহ করে অ্যানসিয়েন্ট ডেলটার নিচে এনে শিলাগুলো জড়ো করবে।

নাসার লক্ষ্য, ২০৩০ সালের মধ্যে বিস্তারিত গবেষণার জন্য এই শিলাগুলো পৃথিবীতে নিয়ে আসা। এসব নমুনা পরীক্ষা করে মঙ্গলগ্রহ সম্পর্কে আরও নতুন তথ্য জানা যাবে বলে জানিয়েছেন নাসার বিজ্ঞানীরা।

পারসিভারেন্সের ডাক নাম ‘পারসি’। মোটরগাড়ি আকারের মঙ্গলগ্রহ পরিভ্রমণকারী এই যানটি মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার মার্স ২০২০ অভিযানের অংশ হিসেবে মঙ্গলগ্রহে অনুসন্ধান পরিচালনা করতে নকশা করা হয়েছে।  

গত বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি রোভারটি মঙ্গলগ্রহের মাঝামাঝি ‘জেজেরো ক্রেটার’ নামের একটি স্থানে সফলভাবে অবতরণ করে।

বরগুনার আলো