• বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৫ ১৪৩০

  • || ১৭ শা'বান ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে পুলিশ সপ্তাহ শুরু, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে পুলিশ নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দেশপ্রেম ও পেশাদারিত্বের পরীক্ষায় বারবার উত্তীর্ণ হয়েছে পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে বিচারকদের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধকল্পে খেয়াল রাখার আহ্বান মিউনিখ সফরে বাংলাদেশের অঙ্গীকার বলিষ্ঠরূপে প্রতিফলিত হয়েছে পবিত্র রমজানে নিত্যপণ্যের সংকট হবে না: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই সামুদ্রিক সম্পদ আহরণের আহ্বান সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে কাজে লাগানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: শেখ হাসিনা

শের-ই-বাংলায় ঠাণ্ডাজনিত রোগের চিকিৎসা দিতে হিমশিম

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

কখনও কনকনে শীত, আবার কখনও কিছুটা গরম অনুভূতি- এভাবেই গত কয়েকটা দিন ধরে দক্ষিণাঞ্চলের আবহাওয়া পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এতে বৃদ্ধি পাচ্ছে নিউমোনিয়া, জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশি, ডায়রিয়াসহ শীতজনিত নানা রোগ।

ফলে দক্ষিণাঞ্চলের একমাত্র ভরসার চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ধারণ ক্ষমতার অধিক রোগী ভর্তি হচ্ছে। এতে হাসপাতালের চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্টদের সেবা প্রদানে হিমশিম খেতে হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা হাসপাতালগুলোতেও রোগীর সংখ্যা কম নয়।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছে ভোলার বাসিন্দা চার বছর বয়সী শিশু আফসানা। তিনদিন আগে তাকে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আফসানার অভিভাবকরা জানান, শ্বাসকষ্টের সমস্যা হওয়ায় তাকে এ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু রোগীর সংখ্যা এত বেশি তারা আফসানার জন্য কোনো বেড পাননি। ফ্লোরে আফসানাকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়েছে। সে আপাতত সুস্থ।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলার শিশু ওয়ার্ডে ধারণক্ষমতার কয়েক গুণ বেশি রোগী ভর্তি। যারা ভর্তি হয়েছে বা হচ্ছে সবারই প্রায় ঠাণ্ডাজনিত বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে বেড বরাদ্দ আছে ৬৩টি। কিন্তু শিশু ওয়ার্ডসহ বিভাগের অধীনে ভর্তি আছে প্রায় তিনশ জনের বেশি। এছাড়া সংকটাপন্ন প্রায় শতাধিক শিশু আছে স্পেশাল কেয়ার নিওনাটাল ইউনিটে। আক্রান্তদের মধ্যে শূন্য থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশুদের সংখ্যাই বেশি। শুধু ডায়রিয়া ওয়ার্ডেই শিশুর সংখ্যা অর্ধশত ছাড়িয়ে গেছে।

হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের বিভাগীয় প্রধান উত্তম কুমার সাহা জানান, দুই ও তিনতলা ছাড়াও আরও কয়েকটি ইউনিট নিয়ে শিশু বিভাগ। এখানে ধারণক্ষমতার অন্তত প্রায় ৫ গুণ রোগী নিয়ে আমরা হিমশিম খাচ্ছি। আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে নিউমোনিয়া রোগী, সংকটাপন্ন রোগী রয়েছে। বিভাগের একমাত্র মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হওয়ায় আশপাশের জেলা ও উপজেলা ছাড়াও বিভাগের বাইরে থেকেও প্রতিদিন এখানে শত শত রোগী আসে। ভর্তি রোগীর দ্বিগুণ রোগী প্রতিদিন বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিচ্ছে। শিশুদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা গেলে এই চাপ কিছুটা কমতে পারে।

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম বলেন, আমাদের এখানে প্রতিনিয়তই বিভিন্ন রোগী আসছে। নিউমোনিয়া, জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশি, ডায়রিয়াসহ শীতজনিত নানা রোগ নিয়ে শিশু ও বয়স্ক রোগী ভর্তি হচ্ছে। আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করছি তাদের চিকিৎসা সেবা দিতে। আমাদের এ হাসপাতালটি বিভাগের বড় হলেও এর শয্যা সংখ্যা কম; আমরা তার পরেও এর ধারণ ক্ষমতার প্রায় ৫ গুণ বেশি রোগীর সেবা দিতে বাধ্য হচ্ছি। নতুন ভবন তৈরি হয়ে গেলে আমাদের এ সমস্যা কেটে যাবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় বরিশাল বিভাগে মোট ৪১৫ জন ঠাণ্ডাজনিত রোগ নিয়ে জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩২ জন, বরিশাল জেলার অন্যান্য হাসপাতালগুলোয় ৭১ জন, পটুয়াখালী জেলায় ১১১ জন, ভোলা জেলায় ৯৯ জন, বরগুনা জেলায় ১৬ জন, ঝালকাঠি জেলায় ৫৩ জন ও পিরোজপুর জেলায় ৩৩ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। আর ঠাণ্ডাজনিত রোগ নিয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বেশ কয়েকজনের জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

বরগুনার আলো