• মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৯ ১৪৩১

  • || ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী খেলাধুলার মধ্য দিয়ে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে: রাষ্ট্রপতি শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক মামলা নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশুপালন ও মাংস প্রক্রিয়াকরণের তাগিদ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হতো মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার প্রতি নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রী আজ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর দলের নেতাদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানায় শেখ হাসিনা মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বর্তমান প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানতে পারবে মুজিবনগর দিবস বাঙালির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় দিন: প্রধানমন্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণকে দিতে, আর বিএনপি আসে নিতে: প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা রাষ্ট্রপতির

না দেখে নবিজির (সা.) প্রতি ঈমান আনার ফজিলত

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২৩  

মানুষের পূর্ণাঙ্গ ঈমানদার হওয়ার জন্য পূর্বশর্ত হচ্ছে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উপর ঈমান আনা, তাঁকে পরিপূর্ণ বিশ্বাস এবং মহব্বত করা। তাঁকে না দেখে তাঁর উপর বিশ্বাস স্থাপন করার ফজিলত ও মর্যাদা অনেক বেশি। নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাদিসের বর্ণনায় তা প্রমািণিত। তাহলো-

হজরত আবু আবদুর রহমান জুহানি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, একদিন আমরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে বসা ছিলাম। এমন সময় দু’জন আরোহীকে আসতে দেখা গেলো। রাসুলুল্লাহ সালাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের দেখে বললেন, এদেরকে কিন্দা ও মাযহিজ গোত্রের মনে হচ্ছে। অতপর তারা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে উপস্থিত হলো। তাদের সঙ্গে মাযহিজ গোত্রের কিছু লোকও ছিল।

বর্ণনাকারী জুহানি বলেন, অতপর দুই আগন্তুকের একজন বাইয়াত গ্রহণের জন্য রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছাকাছি হলো। যখন তিনি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাত নিজের হাতে নিলেন তখন বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! যে ব্যক্তি আপনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলো এবং আপনার উপর ঈমান আনলো, আপনাকে সত্য বলে মানলো এবং আপনার অনুসরণ করলো, সে কি পাবে? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তার জন্য সুসংবাদ (মোবারকবাদ) এরপর লোকটি তাঁর হাতের উপর হাত বুলিয়ে বাইয়াত গ্রহণ করে চলে গেল।

অতপর দ্বিতীয় ব্যক্তি অগ্রসর হলো- সেও বাইয়াত গ্রহণের জন্য রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাত নিজের হাতে রেখে বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! যে ব্যক্তি আপনাকে না দেখে ঈমান আনলো, আপনাকে সত্য বলে মানলো এবং আপনার অনুসরণ করলো, সে কি পাবে? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তার জন্য সুসংবাদ, তার জন্য সুসংবাদ, তার জন্য সুসংবাদ। এরপর এ লোকটিও তাঁর হাতের উপর হাত বুলিয়ে বাইয়াত গ্রহণ করে চলে গেল। (মুসনাদে আহমাদ)

এ হাদিস থেকে বুঝা গেল, যারা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহ ওয়া সাল্লামকে না দেখেই তার উপর ঈমান আনলো এবং তার পরিপূর্ণ অনুসরণ করলো তার ঈমান ও আমলের মর্যাদা বেশি।

আল্লাহ তাআলা সবাইকে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কর্মনীতির পরিপূর্ণ অনুসরণ ও অনুকরণ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

বরগুনার আলো