• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২১ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে

না দেখে নবিজির (সা.) প্রতি ঈমান আনার ফজিলত

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২৩  

মানুষের পূর্ণাঙ্গ ঈমানদার হওয়ার জন্য পূর্বশর্ত হচ্ছে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উপর ঈমান আনা, তাঁকে পরিপূর্ণ বিশ্বাস এবং মহব্বত করা। তাঁকে না দেখে তাঁর উপর বিশ্বাস স্থাপন করার ফজিলত ও মর্যাদা অনেক বেশি। নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাদিসের বর্ণনায় তা প্রমািণিত। তাহলো-

হজরত আবু আবদুর রহমান জুহানি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, একদিন আমরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে বসা ছিলাম। এমন সময় দু’জন আরোহীকে আসতে দেখা গেলো। রাসুলুল্লাহ সালাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের দেখে বললেন, এদেরকে কিন্দা ও মাযহিজ গোত্রের মনে হচ্ছে। অতপর তারা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে উপস্থিত হলো। তাদের সঙ্গে মাযহিজ গোত্রের কিছু লোকও ছিল।

বর্ণনাকারী জুহানি বলেন, অতপর দুই আগন্তুকের একজন বাইয়াত গ্রহণের জন্য রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছাকাছি হলো। যখন তিনি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাত নিজের হাতে নিলেন তখন বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! যে ব্যক্তি আপনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলো এবং আপনার উপর ঈমান আনলো, আপনাকে সত্য বলে মানলো এবং আপনার অনুসরণ করলো, সে কি পাবে? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তার জন্য সুসংবাদ (মোবারকবাদ) এরপর লোকটি তাঁর হাতের উপর হাত বুলিয়ে বাইয়াত গ্রহণ করে চলে গেল।

অতপর দ্বিতীয় ব্যক্তি অগ্রসর হলো- সেও বাইয়াত গ্রহণের জন্য রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাত নিজের হাতে রেখে বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! যে ব্যক্তি আপনাকে না দেখে ঈমান আনলো, আপনাকে সত্য বলে মানলো এবং আপনার অনুসরণ করলো, সে কি পাবে? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তার জন্য সুসংবাদ, তার জন্য সুসংবাদ, তার জন্য সুসংবাদ। এরপর এ লোকটিও তাঁর হাতের উপর হাত বুলিয়ে বাইয়াত গ্রহণ করে চলে গেল। (মুসনাদে আহমাদ)

এ হাদিস থেকে বুঝা গেল, যারা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহ ওয়া সাল্লামকে না দেখেই তার উপর ঈমান আনলো এবং তার পরিপূর্ণ অনুসরণ করলো তার ঈমান ও আমলের মর্যাদা বেশি।

আল্লাহ তাআলা সবাইকে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কর্মনীতির পরিপূর্ণ অনুসরণ ও অনুকরণ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

বরগুনার আলো