• শুক্রবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৮

  • || ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
প্রশিক্ষিত সামরিক বাহিনী গঠনে বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি বাংলাদেশ আর পিছিয়ে যাবেনা, এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত পার্বত্য শান্তিচুক্তির ফলে দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বিশ্বের ইতিহাসে বিরল ঘটনা: প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ২৪ বছরে পার্বত্য শান্তি চুক্তি করোনা বাড়লে আবারও বন্ধ হবে স্কুল: প্রধানমন্ত্রী আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না: প্রধানমন্ত্রী গাড়ি ভাঙচুর-আগুন দিলেই ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উদ্বোধন ও জয়িতা টাওয়ারের ভিত্তি স্থাপন সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে ঢাবি: প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে অব্যাহত সমর্থন দেবে রাজস্ব বোর্ডকে সেবাধর্মী, জনবান্ধব ও করদাতাবান্ধব করেছে সরকার ষড়যন্ত্র থাকবে, তবু দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে ২৭ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব পেয়েছি বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বিজনেস সামিট বিনিয়োগ বাজার তৈরি করবে: প্রধানমন্ত্রী ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চারিত করে’

চীন-রাশিয়া চাইলেই রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান সম্ভব: মোমেন

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০২১  

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, ‘জাতিসংঘের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ তথা নিরাপত্তা পরিষদের ভেটোর কারণেই রোহিঙ্গা সমস্যা ঝুলে আছে। চীন ও রাশিয়া চাইলেই এ সমস্যা সমাধান সম্ভব।’ রোববার (২৪ অক্টোবর) বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে ঢাকাবাসী আয়োজিত ‘জাতিসংঘ দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পরাশক্তিরা যদি কোনো বিষয়ে আপত্তি করে, তখন জাতিসংঘের কিছুই করার থাকে না। তাদের কারণে আমাদের রোহিঙ্গা সমস্যা, ওদিকে ফিলিস্তিনের সমস্যা ঝুলেই আছে।’

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘের নিজের কোনো শক্তি নেই। সদস্য দেশগুলোর কাছ থেকেই তাদের শক্তি। সেই কারণে আমরা রোহিঙ্গা ইস্যুতে ঝুলে আছি। আমরা আশা করি, আগামীতে যারা এটিকে ঝুলিয়ে রেখেছে, বিশেষ করে রাশিয়া ও চীন, তারা সদয় হলেই এ সমস্যার সমাধান হবে।’

জাতিসংঘকে জনস্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মোমেন বলেন, ‘আমরা এমন এক জাতিসংঘ চাই, যারা শুধু পাঁচ দেশের জন্য কাজ করে না। তারা সমগ্র বিশ্বের জন্য কাজ করবে। প্রত্যেক দেশই যেন অন্য দেশের বিরুদ্ধে ভেটো দিতে পারে। কিন্তু সিকিউরিটি কাউন্সিলে পাঁচটি দেশই মাতব্বর। জাতিসংঘকে আরও শক্তিশালী করতে হবে, জনসম্পৃক্ত করতে হবে। কারণ এটি হলো মানুষের মুখপাত্র। প্রতিষ্ঠানটির বিশ্ব নেতৃত্বের মুখপাত্র হওয়া উচিত। গুটিকয়েক দেশের মুখপাত্র হওয়া উচিত নয়।’

জাতিসংঘে বাংলাদেশর অবস্থান আরও শক্তিশালী করার আশাবাদ ব্যক্ত করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে জাতিসংঘকে যথেষ্ট সহযোগিতা করছি। দুঃখের বিষয়, জাতিসংঘের নেতৃত্বে বাংলাদেশের এখনো খুব বেশি অগ্রসর হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কারণে আমি জাতিসংঘে ছয় বছর ছিলাম। এ ছয় বছরে আমরা ৫২টি প্রতিষ্ঠানে নির্বাচিত হয়েছি, কোনোটিতে হারিনি। তার কারণ একটাই, তা হলে বঙ্গবন্ধুর সেই পলিসি। সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে শত্রুতা নয়। কিন্তু বিভিন্ন পজিশনে, তাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় আমাদের উপস্থিতিটা কম। এখন আমাদের সময় এসেছে, প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে হবে।’

বরগুনার আলো