• বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৯

  • || ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রিফুয়েলিং পয়েন্ট কক্সবাজারে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে কউক’র নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে- প্রধানমন্ত্রী ওপেনিংয়ে চতুর্থ সেরা জুটি গড়ে ফিরলেন জয়, তামিমের সেঞ্চুরি নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী টাকা অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী ‌ঢাকায় বসে সমালোচনা না করে গ্রামে ঘুরে আসুন বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী আমিরাতের নতুন প্রেসিডেন্টকে রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন শেখ হাসিনাকে স্পেনের সরকার প্রধানের শুভেচ্ছা পি কে হালদার গ্রেফতার নানামুখী ষড়যন্ত্র হচ্ছে, সতর্ক থাকতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

১০০ কোটি টাকার রাজস্ব চুরি ঠেকালো কাস্টমস

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৮ ডিসেম্বর ২০২১  

১ কোটি ৬২ লাখ সিগারেটের প্যাকেটে জাল ব্যান্ড রোল (স্ট্যাম্প) ব্যবহার করে ১০০ কোটি টাকা রাজস্ব চুরির অপচেষ্টা রুখে দিল কাস্টম হাউস। চীন থেকে ছাপিয়ে মিথ্যা ঘোষণায় চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে আনা হয়েছিল এসব ব্যান্ডরোল।

কাস্টম হাউস সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানাধীন জুবিলি রোডের ১২৮, কাদের টাওয়ারের চতুর্থতলার আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান আরাফাত এন্টারপ্রাইজের নামে চালানটি বন্দরে আসে। ঘোষণা ছিল এফোর পেপার অল পারপাস, ডিডিজি এমডব্লিউ ৮০জিএসএম। এ চালানের বিপরীতে ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড জুবিলি রোড থেকে এলসি ইস্যু হয়েছিল গত ৮ নভেম্বর।

কাস্টম হাউস সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানাধীন জুবিলি রোডের ১২৮, কাদের টাওয়ারের চতুর্থতলার আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান আরাফাত এন্টারপ্রাইজের নামে চালানটি বন্দরে আসে। ঘোষণা ছিল এফোর পেপার অল পারপাস, ডিডিজি এমডব্লিউ ৮০জিএসএম। এ চালানের বিপরীতে ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড জুবিলি রোড থেকে এলসি ইস্যু হয়েছিল গত ৮ নভেম্বর।

কাস্টম হাউস সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের পোর্ট কনট্রোল ইউনিট (পিসিইউ) ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার আওতায় রফতানিকারক, রফতানিকারকের ওয়েবসাইট, পণ্য তৈরির দেশ, আমদানিকারকের ব্যবসার ধরন ও ঠিকানা, পণ্যের বিবরণ ইত্যাদি বিশ্লেষণ করে পণ্য চালানটিতে অসত্য ঘোষণায় সিগারেটের মোড়কে ব্যবহারযোগ্য জাল স্ট্যাম্প থাকার বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা পায়। এ তথ্যের ভিত্তিতে কাস্টম হাউসের অডিট, ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চ (এআইআর) শাখা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অ্যাসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সিস্টেমে এ চালানের বিএল ব্লক করে, যাতে কেউ খালাস নিতে না পারে।

বুধবার (২২ ডিসেম্বর) এ চালানের কনটেইনাটি ফোর্স কিপ ডাউনের মাধ্যমে নামিয়ে বন্দরের ভেতরে নিয়ম অনুযায়ী এআইআর টিম পরীক্ষা শুরু করে। শতভাগ কায়িক পরীক্ষার লক্ষ্যে সব পণ্যের প্যাকেট কেটে দেখা হয়। এ সময় কনটেইনারটিতে থাকা ১২ প্যালেটের মধ্যে ৪টিতে ১২০ কার্টন (নিম্নস্তর ১০৫ কার্টন ও মধ্যম স্তর ১৫ কার্টন) বাংলাদেশের সিগারেটে ব্যবহারের উপযোগী হালকা সবুজ ও হালকা খয়েরি রঙের জাল স্ট্যাম্প পাওয়া যায়। প্রতি কার্টনে ২৭০ বান্ডিল এবং প্রতি বান্ডিলে ৫০০ পিস হিসেবে মোট ১ কোটি ৬২ লাখ পিস ব্যান্ড রোড বা স্ট্যাম্প ছিল এ চালানে। এর মধ্যে নিম্নস্তরের ১ কোটি ৪১ লাখ ৭৫ হাজার পিস এবং মধ্যম স্তরের ২০ লাখ ২৫ হাজার পিস রয়েছে। যার ওজন ১ হাজার ২০০ কেজি।  

বাকি ১ হাজার ১৪০ কার্টনে এফোর সাইজের কাগজ পাওয়া গেছে যার মোট ওজন ১৪ হাজার ৩৮০ কেজি এবং নিট ওজন ১২ হাজার ৫৪০ কেজি।  

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের এসআরও (নম্বর ১৪৭-আইন/২০২০/১০৮-মূসক, তারিখ ১১/০৬/২০২০) অনুযায়ী নিম্নস্তরের  খয়েরি রঙের সিগারেট স্ট্যাম্পের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৩৯-৬২ টাকা। এর বিপরীতে এসডি’র হার ৫৭ শতাংশ, মূসকের হার ১৫ শতাংশ। মধ্যম স্তরের সিগারেট স্ট্যাম্পের রং হালকা সবুজ, যার খুচরা মূল্য ৬৩-১০১ টাকা। এসডি ৬৫ শতাংশ, মূসক ১৫ শতাংশ।

এআইআর শাখার একজন কর্মকর্তা জানান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের এসআরও অনুযাযী স্ট্যাম্প বা ব্যান্ডরোল দ্য সিকিউরিটি প্রিন্টিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ থেকে সংগ্রহ করতে হয় এবং সংশ্লিষ্ট কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট কর্তৃক দ্য সিকিউরিটি প্রিন্টিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ এবং সিগারেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত কমিটি প্রতি ৩ মাস পর প্রতিষ্ঠানভিত্তিক সিগারেট স্ট্যাম্প ও ব্যান্ডরোল সরবরাহ ও ব্যবহার আড়াআড়ি যাচাইপূর্বক প্রতিবেদন এনবিআরের মূসক বাস্তবায়ন শাখায় পাঠাতে হয়। ফলে এ জাতীয় পণ্য দ্য সিকিউরিটি প্রিন্টিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ ছাড়া অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে কেনা বা বিদেশ থেকে আমদানি করার সুযোগ নেই।

তিনি জানান, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের কমিশনার মহোদয়ের নির্দেশে দোষী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে কাস্টম অ্যাক্ট ১৯৬৯ এবং প্রচলিত অন্যান্য আইন ও বিধি অনুযায়ী কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে। 

বরগুনার আলো