• সোমবার   ২৫ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৯ ১৪২৮

  • || ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
দেশের ভাবমূর্তি নষ্টকারীদের বিষয়ে সচেতন হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন পায়রা সেতুতে হাঁটতে পারলে ভালো লাগতো: প্রধানমন্ত্রী সিলেট-ঢাকা চার লেনের নির্মাণকাজের উদ্বোধন বাংলাদেশকে কেউ আর পিছিয়ে রাখতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী স্বপ্নের পায়রা সেতু উদ্বোধন ‘বাসযোগ্য গ্রহ থেকে অনেক অনেক দূরে রয়েছে বিশ্ব’ পায়রা সেতুর উদ্বোধন আজ, দক্ষিণাঞ্চলের আরেকটি স্বপ্নপূরণ নেতাকর্মীদের নজরদারি বাড়াতে বললেন শেখ হাসিনা কুমিল্লার ঘটনা দুঃখজনক, অপরাধীর বিচার হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘দেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানি পণ্য হবে ডিজিটাল ডিভাইস’ সরকারের ধারাবাহিকতা আছে বলেই উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী বিদেশে বিনিয়োগের প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী পূর্বাচলে প্রদর্শনীকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন আজ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কঠোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘এমন বাংলাদেশ গড়তে চাই, যেখানে শিশুরা বড় হবে সুন্দর পরিবেশে’ একটা অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশকে গড়তে চাই: প্রধানমন্ত্রী আমাদের ছোট রাসেল সোনা: শেখ হাসিনা শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন

‘চরম সমালোচিত ইনডেমনিটির সবচেয়ে সুবিধাভোগী দল বিএনপি’

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১  

‘জাতির পিতা মুজিব হত্যার বিচার হবে না’- খুনিচক্র রক্ষায় ৪৬ বছর আগে আইন করেছিল মোশতাক সরকার। রাজনীতির ইতিহাসে চরম সমালোচিত এই ইনডেমনিটি বিলের মাধ্যমে সবচেয়ে সুবিধাভোগী দলের নাম বিএনপি। ইনডেমনিটিকে হঠকারি আখ্যা দিয়ে বিএনপির তাবৎ ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দলটির প্রাক্তন মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা।

পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট; ধানমণ্ডির বাড়িতে চিহ্নিত খুনিরা হত্যা করে বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। হত্যা হয় পরিবারের অপরাপর সদস্য। 

খুনিচক্রের সঙ্গে সে সময় ক্ষমতা দখল করে খন্দকার মোশতাক। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার যাতে না হয় সেজন্য ২৬শে সেপ্টেম্বর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে তখনকার সরকার। ইতিহাসে যা-‘কালা কানুন’ নামে পরিচিত। 

অতঃপর জেনারেল জিয়ার ক্ষমতা দখল। আটাত্তরের সেপ্টেম্বরে প্রতিষ্ঠা হয় জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। পরের বছর ৯ এপ্রিল পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে বৈধতা দেয় জিয়া সরকার। 

ওই সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। এতোদিন পর তিনি তুলে ধরলেন ইতিহাসের চরম সত্য। বললেন, ন্যায়বিচার পরিপন্থি আইন সমর্থনযোগ্য নয়।

ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা বলেন, ‘কোন হত্যাকাণ্ড কেউই সমর্থন করতে পারেনা। কোন ইনডেমনিটি মিল কোন রকমের পরবর্তী আইন কোন হত্যাকাণ্ড জায়েজ করার মতো নৈতিকভাবে তারা কোন সমর্থন পাবে না। ১৯৭৫ সালের আগস্টের শূন্যতা পূরণের মধ্য দিয়ে বিএনপি এটার বেনিফিসিয়ারি ছিল। তাদের জন্য অনেককিছুই মর‌্যালি করা সম্ভব ছিল না।’

জিয়াউর রহমানের ক্ষমতা দখলে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সমর্থন ছিলো কি-না তা নিয়েও কথা বলেন ব্যারিস্টার হুদা। 

ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা আরও বলেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় আসলো ঠিকই, এই আসার পেছনেও এদের একটা অন্যরকম প্রক্রিয়া ছিল। কারণ উনি তো সামরিক থেকেই এখানে। তার সেই কর্মকাণ্ডের মধ্যে ওদের যে সমর্থন ছিল না এটা আমি বলতে পারবো না।’

একুশ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে কুখ্যাত আইনটি বাতিল করে। নাজমুল হুদা বলেন, দু’একজন বিএনপি সদস্য এর পক্ষে থাকলেও দলীয় সিদ্ধান্তের কারণে ওয়াক আইট করতে হয়েছিল।  

নাজমুল হুদা বলেন, ‘আর্টিকেল ৭২-এ দল থেকে যদি সিদ্ধান্ত হয় এটাকে সমর্থন করতে হবে, সেটা যদি আমি সমর্থন না করি তাহলে তো আমার সদস্য পদ বাতিল হয়ে যাবে। ভেতরে ভেতরে আমাদের অবস্থান অন্যরকম ছিল। মওদুদ ভাই এবং আমি- আমরা সবাই একই মতের ছিলাম। এ ধরনের মানবতাবিরোধী হত্যাকাণ্ডের উপর কোন রকম সমর্থন দেয়া যায় না।’

২০০১ সালে বিএনপি পুনরায় ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার প্রক্রিয়া থামিয়ে দেয়। সঙ্গতকারণেই তাই প্রশ্ন ছিল, বিএনপিই কি তাহলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের পৃষ্ঠপোষক?

ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা বলেন, ‘এই আইনটার পেছনে যেখানে তার সমর্থন রয়েছে। সেই সমর্থক দল পরবর্তীতে বিপরীতে অবস্থান নিতে পারে না।’

ব্যারিস্টার হুদার এই কৌশলী উত্তর যেমন অনেক প্রশ্নের জন্ম দেবে, তেমনি ইতিহাসের দায় থেকে বেরিয়ে আসবে অজানা অনেক তথ্য। 

বরগুনার আলো