• শুক্রবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৮

  • || ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
প্রশিক্ষিত সামরিক বাহিনী গঠনে বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি বাংলাদেশ আর পিছিয়ে যাবেনা, এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত পার্বত্য শান্তিচুক্তির ফলে দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বিশ্বের ইতিহাসে বিরল ঘটনা: প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ২৪ বছরে পার্বত্য শান্তি চুক্তি করোনা বাড়লে আবারও বন্ধ হবে স্কুল: প্রধানমন্ত্রী আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না: প্রধানমন্ত্রী গাড়ি ভাঙচুর-আগুন দিলেই ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উদ্বোধন ও জয়িতা টাওয়ারের ভিত্তি স্থাপন সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে ঢাবি: প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে অব্যাহত সমর্থন দেবে রাজস্ব বোর্ডকে সেবাধর্মী, জনবান্ধব ও করদাতাবান্ধব করেছে সরকার ষড়যন্ত্র থাকবে, তবু দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে ২৭ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব পেয়েছি বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বিজনেস সামিট বিনিয়োগ বাজার তৈরি করবে: প্রধানমন্ত্রী ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চারিত করে’

শ্রী ফিরে পেয়েছে শ্রীপুরের রাংপানি

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৩ অক্টোবর ২০২১  

সকালে শরতের স্নিগ্ধতা ছিল। তবে বেলা বাড়লে মনে হতে থাকল প্রকৃতিতে যেন গ্রীষ্মের দাবদাহ ভর করেছে। রোদ আর গরমে নাকাল হয়ে আমরা ছুটছি সিলেট-তামাবিল সড়ক ধরে। সড়কের দুপাশের হাওরের অদূরে হালকা কুয়াশার আবরণ। ভরদুপুরে গরু নিয়ে মাঠে যাচ্ছে এক রাখাল বালক। হাওরের পানিতে মাছ ধরছে ছেলে-বুড়ো। মেঘালয়ের জৈন্তা-খাসিয়া পাহাড় হাতছানি দিচ্ছিল হরিপুর থেকেই। গন্তব্যের যত কাছে যাচ্ছিলাম, জৈন্তা পাহাড় ততই দৃশ্যমান হচ্ছিল। এসব মন হারানো দৃশ্য দেখতে দেখতেই বাইক থামল সিলেট শহর থেকে ৪৫ কিলোমিটার দূরত্বে, শ্রীপুরে।

শ্রী মানে সুন্দর, এর সঙ্গে ‘পুর’ যুক্ত হয়ে ‘শ্রীপুর’। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে এতটাই ভরপুর যে এলাকার নামই হয়েছে ‘শ্রীপুর’। এই শ্রীপুরেই অবস্থান সীমান্তবর্তী নদী ‘রাংপানি’র। মেঘালয়ের জৈন্তা পাহাড়ের রংহংকং জলপ্রপাত থেকে স্বচ্ছ জলের রাংপানির উৎপত্তি। অনেকের কাছে শ্রীপুর পাথরকোয়ারি নামেও পরিচিত।

স্থানীয়দের নৌকায় ঘুরতে পারেন রাংপানির বুকে

স্থানীয়দের নৌকায় ঘুরতে পারেন রাংপানির বুকে

রাংপানি নদীর পাশেই রয়েছে খাসিয়াদের গ্রাম মোকামপুঞ্জি। খাসিয়ারা গ্রামকে পুঞ্জি নামেই ডাকে। প্রাচীনকাল থেকে এই নদী আর পাহাড় ঘিরে তাদের বসবাস। পুঞ্জিতে গেলেই জানা যাবে খাসিয়াদের ইতিহাস-ঐতিহ্য। রাংপানি আর পুঞ্জির আশপাশের এলাকায় আশি ও নব্বইয়ের দশকে ঢাকাই চলচ্চিত্রের একাধিক ছবির শুটিং হয়েছে। শাবনাজ-নাঈম জুটির প্রথম ছবি চাঁদনীর জনপ্রিয় গান ‘ও আমার জান, তোর বাঁশি যেন জাদু জানে রে’ ছাড়াও বেশ কিছু দৃশ্য শ্রীপুরের বিভিন্ন স্থানে চিত্রে ধারণ করা হয়েছিল।

একসময় সরকারঘোষিত পাথরকোয়ারির জন্য শ্রী হারাতে থাকে শ্রীপুর। পর্যটকেরা মুখ ফিরিয়ে নেয়। রাংপানি তাই তো এই প্রজন্মের অনেকের কাছে অজানা। আমরা অজানাকে জানার জন্যই শ্রীপুরে যাত্রা করেছিলাম। রাংপানি নদী আর তার চারপাশের প্রকৃতি আমাদের মুগ্ধ করেছে।

রাংপানির পারে কাশবন

রাংপানির পারে কাশবন

পাহাড়ি সরু পথ ধরে নিচে নামতেই রাংপানির দুপাশের কাশফুল হেলেদুলে অভ্যর্থনা জানাল। চোখে পড়ল নদীর উৎসমুখে নীল পানি। নদীর কোলে ছড়িয়ে–ছিটিয়ে আছে হরেক রঙা পাথর। পাথর তোলা স্থানগুলো দ্বীপের মতো হয়ে আছে। কোনোটিতে জমে আছে পানি। পাশেই পড়ে আছে বালু ও পাথরবাহী বারকি নৌকা। নদী লাগোয়া বাসিন্দারা কেউ কেউ গোসল করছেন সেই পানিতে। পানি কম থাকায় রাংপানির বুকে জাল ফেলে মাছ ধরছেন স্থানীয় ব্যক্তিরা। একে একে চোখে ভাসতে থাকল এমন সব দৃশ্য। প্রকৃতির বুকে শিল্পীর তুলিতে আঁকা এ যেন এক সুশ্রী নকশিকাঁথা।

রাংপানির সৌন্দর্য দেখা ও ছবি তোলা শেষে যখন ফিরছি, সাদা মেঘে তখন অস্পষ্ট জৈন্তা পাহাড়। মৃদৃ বাতাসে নদীপারের কাশফুল হেলেদুলে বিদায় জানায় যেন। এমন প্রাকৃতিক রূপের জাদুতে কখন যেন মনটা আনমনে গেয়ে উঠল, ‘ও আমার জান, তোর বাঁশি যেন জাদু জানে রে...’।

দূর পাহাড় থেকে নেমে এসেছে রাংপানি নদী

দূর পাহাড় থেকে নেমে এসেছে রাংপানি নদী

যাবেন যেভাবে

দেশের যেকোনো স্থান থেকে সিলেটে আসতে হবে। শহর থেকে সিলেট-তামাবিল সড়কে বাস, লেগুনা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা অথবা ব্যক্তিগত গাড়িতে সরাসরি যাওয়া যায় জৈন্তাপুরের শ্রীপুরে। সারা দিনের জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশার ভাড়া নেবে ১ হাজার ৫০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা। জৈন্তাবাজার বাজার থেকে ৩ কিলোমিটার পর শ্রীপুর চা-বাগান। এর উল্টো দিকে ধরে সরু পথ পাড়ি দিলেই রাংপানি নদী। স্থানীয় বারকি নৌকা নিতে পারেন নদীর ওপারে যেতে। নৌকার ভাড়া ঠিক করে নিতে হবে আগেই। দুপুরের খাবার জৈন্তা বা মোকামপুঞ্জি এলাকায় সেরে নিতে পারেন। সঙ্গে নেওয়া খাবার শেষে পলিথিন ব্যাগ বা অন্য কিছু পর্যটন এলাকায় ফেলবেন না।

বরগুনার আলো